নিজের বাড়ি ভাড়া দিতে পারছেন না এই অভিনেত্রী


এক সময়কার জনপ্রিয় বলিউড অভিনেত্রী মল্লিকা শেরওয়াত। কিন্তু পাঠক কখনও কী ভেবেছেন বাড়ি ভাড়ার টাকা না দিতে পেরে সংবাদের শিরোনাম হবেন এই অভিনেত্রী! জীবন বড়ই রহস্যময়। সময় কখন কাকে কোথায় নিয়ে যায় বলাটা সত্যিই মুশকিল।
গত বছরের শুরু থেকে প্যারিসের বিলাসবহুল এলাকার একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতেন মল্লিকা ও তার ফরাসি স্বামী সিরিল। ওই ফ্ল্যাটের মাসিক ভাড়া ছিল ছয় হাজার ৫৪ ইউরো। সব ঠিকঠাকই ছিল। কিন্তু ফ্ল্যাট মালিকের অভিযোগ, ভাড়া নেয়ার পর থেকে কোনোদিন মালিককে কোনো টাকাই দেননি এই দম্পতি।
বাড়িওয়ালা জানান, একদম শুরুতে ২,৭১৫ ইউরো দিয়েছিলেন। এরপর আর কোনো পাত্তা পাওয়া যায়নি তাদের। এই যখন অবস্থা তখন আলাদতের দ্বারস্থ হন ফ্ল্যাট মালিক।
মামলার শুনানিতে গত নভেম্বরে মল্লিকার আইনজীবী জানিয়েছিলেন, অভিনেত্রীর হাতে বিশেষ কাজ না থাকায় নিয়মিত ভাড়া দিতে পারছিলেন না তিনি। যদিও ফ্ল্যাট মালিক সে অভিযোগ খারিজ করে দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতেই গত ডিসেম্বরে ফ্রান্সের এক আদালত ওই অ্যাপার্টমেন্ট থেকে মল্লিকাকে বিতাড়িত করার নির্দেশ দেয়। পাশাপাশি গত মঙ্গলবার তাদের বকেয়া ভাড়া ৭৮ হাজার ৭৮৭ ইউরো দেয়ার নির্দেশও দিয়েছেন আলাদত।
বলা হয়েছে, বকেয়া অর্থ দিলে তবেই ফ্ল্যাট থেকে নিজেদের আসবাব নেয়ার অনুমতি পাবেন অভিনেত্রী। যদিও শোনা যাচ্ছে, আদালতের নির্দেশের বিরুদ্ধে আপিল করবেন মল্লিকা। কারণ চুক্তি অনুযায়ী, তাকে ৩১ মার্চের আগে ফ্ল্যাট থেকে বের করে দেয়া যাবে না। যদিও এই বিষয়ে মল্লিকা গণমাধ্যমে এখনও কোনো বক্তব্য দেননি।
মল্লিকা শেরাওয়াত বলিউড চলচ্চিত্রের পাশাপাশি তামিল, কন্নড়, হিন্দি, ইংরেজি ও চীনা ভাষার চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। ‘খোয়াইশ’ (২০০৩) এবং ‘মার্ডার’ (২০০৪) চলচ্চিত্রে সাহসীভাবে পর্দায় উপস্থিতির জন্য তিনি বিশেষভাবে পরিচিত। ২০০৬ সালে তিনি ‘পেয়ার কে সাইড ইফেক্টস’ ছবিতে সফল রোমান্টিক কমেডি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন যা তাকে বিভিন্ন সমালোচকদের প্রশংসা অর্জন করতে সহায়তা করে। এরপর তিনি ‘আপ কা সুরুর- দ্য রিয়েল লাভ স্টোরি’ (২০০৭) ও ‘ওয়েলকাম’ (২০০৭)-এর মতোন সফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন, এবং ‘ডাবল ধামাল’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন যা ছিল তার সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক সাফল্য পাওয়া ছবি। বলিউডের কয়েকজন তারকাদের মধ্যে তিনি একজন যিনি ‘হিসসস’ (২০১০) ও ‘পলিটিক্স অব লাভ’ (২০১১) চলচ্চিত্রের মাধ্যমে হলিউডে নিজেকে প্রমাণের চেষ্টা করেছিলেন।

Add Comment