শীতে নিয়ম মেনে চলুন, এলার্জি থেকে সুস্থ থাকুন

এলার্জি সবার, বিশেষত মহিলাদের দুর্বিষহ সমস্যা। কারও ক্ষেত্রে এলার্জি সামান্য অসুবিধার কারণ হতে পারে, আবার কারও ক্ষেত্রে জটিল আকার ধারণ করে৷ হাঁচি কাশি দিয়ে শুরু হলেও শেষ দিকে শ্বাসকষ্টও হতে পারে অ্যালার্জি থেকে। ঘরের ধুলোবালি, বিভিন্ন খাবার, কোনও বিশেষ গন্ধ থেকেও অ্যালার্জি হতে পারে৷

কিভাবে হয়:

আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা থাকে৷ কোন কারনে প্রতিরোধ ব্যবস্থা কমে গেলে অ্যালার্জির সূচনা হয়। মাঝে মাঝে আমাদের শরীর ক্ষতিকর নয় এমন অনেক বস্তুকে ক্ষতিকর ভেবে প্রতিরোধ এর চেষ্টা করে। ক্ষতিকর নয় এমন বস্তুর প্রতিরোধ চেষ্টাই অ্যালার্জি হিসেবে দেখা দেয়৷

অ্যালার্জির লক্ষণ:

ঘন ঘন হাঁচি।

বার বার সর্দি হওয়া

নাক বন্ধ হয়ে থাকা

নাক চুলকানো, গা চুলকানো

চোখ লাল হয়ে চোখ দিয়ে জল পড়া

চামড়ায় লাল লাল চাকা হয়ে ফুলে ওঠা।

চিকিৎসা:

কিছু বিধিনিষেধ মেনে চললে অ্যালার্জি থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী অ্যালার্জি অনুযায়ী ওষুধ খেতে হবে৷

করনীয়:

ঘরের দীর্ঘদিনের জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার করতে হবে।

বিছানার ডাস্ট মাইট থেকে পরিত্রান পেতে চাদর, বালিশের কভার পরিষ্কার রাখতে হবে।

ঘরে পর্যাপ্ত আলো বাতাস আসার ব্যাবস্থা করতে হবে।

রান্নাঘর এর ময়লা আবর্জনা নিয়মিত পরিস্কার করতে হবে।

বাড়িতে পশুপাখি থাকলে, সেই জায়গা পরিষ্কার রাখতে হবে।

বাড়িতে পুরাতন কাপড় থাকলে তা পরিষ্কার করে কেচে পরতে হবে।

Add Comment